২৫শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

December 9, 2019, 6:19 am

কোরাবানী ঈদে ৮ জোড়া বিশেষ ট্রেন চলবে: ঈদের ১০দিন আগে থেকে অগ্রিম টিকিট দেয়া হবে

কামরুল ইসলাম কামুঃ আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল-আযহা (সম্ভাব্য ১২ আগস্ট ) উপলক্ষে বাংলাদেশ রেলওয়ের কর্মপরিকল্পনা আজ রেলভবনে সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন রেলপথ মন্ত্রী মোঃ নূরুল ইসলাম সুজন এমপি।
রেলপথ মন্ত্রী বলেন, ঈদ উপলক্ষ্যে ০৮ জোড়া বিশেষ ট্রেন পরিচালনা করা হবে । ট্রেনগুলো হলো- দেওয়ানগঞ্জ ঈদ স্পেশাল (১ জোড়া), ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা ,চঁাদপুর ঈদ স্পেশাল (২ জোড়া), চট্টগ্রাম-চঁাদপুর-চট্টগ্রাম , সান্তাহার ঈদ স্পেশাল ঃ ঢাকা-সান্তাহার-ঢাকা ,লালমনি ঈদ স্পেশালঃ লালমনিরহাট-ঢাকা-লালমনিরহাট ,মৈত্রীর রেক দিয়ে খুলনা ঈদ স্পেশাল, খুলনা-ঢাকা-খুলনা ,সোলাকিয়া স্পেশাল-১, ভৈরববাজার-কিশোরগঞ্জ-ভৈরববাজার, সোলাকিয়া স্পেশাল-২, ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ- ময়মনসিংহ। পবিত্র ঈদ-উল-আযহা উপলক্ষ্যে ১০(দশ) দিন পূর্ব হতে অগ্রিম টিকিট ঢাকার ৫ টি স্টেশন থেকে বিভিন্ন রট ভিত্তিক বিক্রি করা হবে। এগুলো হচ্ছে ঢাকা (কমলাপুর)-সমগ্র পশ্চিমাঞ্চলগামী ট্রেন ভায়া যমুনা সেত, বিমানবন্দর-চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী সকল আন্ত:নগর ট্রেন, তেজগাও-ময়মনসিংহ ও জামালপুরগামী সকল আন্ত:নগর ট্রেন,বনানী-নেত্রকোনাগামী মোহনগঞ্জ ও হাওড় এক্সপ্রেস ট্রেন, ফুলবাড়িয়া (পুরাতন রেলভবন)-সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী সকল আন্ত:নগর ট্রেনের টিকেট দেয়া হবে।৫ টি স্টেশন কাউন্টার হতে শিডিউল ট্রেনের মোট আসন সংখ্যা ২৬৫০০ এর অর্ধেক কাউন্টার এবং অর্ধেক অনলাইনে বিক্রি হবে। স্পেশাল ট্রেনের কোন টিকেট মোবাইল অ্যাপে পাওয়া যাবে না। শুধুমাত্র স্টেশন কাউন্টার হতে বিক্রি করা হবে।মন্ত্রী উল্লেখ করেন, মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে টিকেট বিক্রি সকাল ০৬:০০ ঘটিকা শুরু হবে। অগ্রিম টিকেট মোবাইল অ্যাপ এবং কাউন্টার ২৪ ঘন্টা পর এক হয়ে যাবে। ঈদ উপলক্ষ্যে মোট ১৪৩৭টি যাত্রীবাহী কোচ এবং মোট ২২৬টি লোকোমোটিভ সার্ভিসে চালু থাকবে। বিক্রয়ের সিডিউল ২৯ জুলাই থেকে ২ আগস্ট পর্যন্ত যথাক্রমে ৭ আগস্ট থেকে ১১ আগস্টের টিকেট বিক্রি করা হবে। একইভাবে ফিরতি টিকেট ৫ আগস্ট থেকে ৯ আগস্ট পর্যন্ত যথাক্রমে ১৪ আগস্ট থেকে ১৮ আগস্টের টিকেট দেয়া হবে। ঈদের পূর্বে ০৭ আগস্ট থেকে ঈদের পূর্ব দিন পর্যন্ত আন্তঃনগর ট্রেনসমূহের অফ-ডে থাকবে না। যাত্রীবাহী ট্রেন চলাচলের সুবিধার্থে ঈদের ০৩ (তিন) দিন পূর্ব থেকে কনটেইনার ও জ্বালানি তেলবাহী ট্রেন ছাড়া কোন গুডস ট্রেন চলাচল করবে না। ভিজিলেন্স টিম গঠন করা হবে এবং টিকেট বিক্রয়ের স্থানে মনিটরিং করবেন। ১১ আগস্ট হতে ১৪ আগস্ট পর্যন্ত ঢাকা-কলকাতা-ঢাকার মধ্যে মৈত্রী এক্সপ্রেস ট্রেন চলাচল করবে না।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে রেলমপথ মন্ত্রী বলেন, এবার মোবাইল অ্যাপসে যেন ভোগান্তি না হয় তার জন্য উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শিডিউল বিপর্যয়ের বিষয়ে বলেন, অতিরিক্ত যাত্রীর চাপে,উঠা-নামার কারনে শিডিউল ঠিক রাখা যায়না। টিকেট কালোবাজারী বিষয়ে বলেন এখন ঢালাওভাবে কালোবাজারী নেই। কারও সুস্পস্টভাবে জানা থাকলে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ সময় রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ মোফাজ্জেল হোসেন, বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক মোঃ শামসুজ্জামান, অতিরিক্ত মহাপরিচালক অপারেশন মোঃ মিয়াজাহান সহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর