২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

December 7, 2019, 3:03 pm

সিরাজগঞ্জে ভূল অপারেশনে প্রসূতি নারীর মৃত্যু-ডাক্তারের বিরুদ্ধে মামলা

বিশেষ প্রতিনিধিঃ  সিরাজগঞ্জের সদর উপজেলায় ভূল অপারেশনে প্রসূতি নারীর মৃত্যু-চিকিৎসকসহ তিন জনের বিরুদ্ধে মামলা করলেন নিহত প্রসূতি নারীর স্বামী মনিরুল ইসলাম।এ ঘটনায় কামারখন্দ উপজেলা ৫০ শয্যা বিশিষ্ঠ হাসপাতালের””ক্টোবর মঙ্গলবার সিরাজগঞ্জ সদর আমলী আদালতে  মামলা দায়ের করেন। যাহার নম্বর ১৯৮/১৯. আসামীরা হলেন, কামারখন্দ উপজেলায় ৫০ শয্যা বিশিষ্ঠ হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার (আরএমও) ডাঃ এসএম সুমনুল হক সজীব (৪০), ল্যাব এইচ হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পরিচালক সাইফুল ইসলামের ছেলে মোঃফিরোজ হোসেন (৩৮) ও ম্যানেজার মোঃ ফরিদুল ইসলাম (৩৫)। 
মামলা সুত্রে জানা যায়, উল্লেখ্য  ডাঃ এসএম সুমনুল হক সজীবের বেপরোয়া অপারেশনে১৫ দিন পর রাশিদা বেগম (৩০) নামের এক প্রসূতি নারীর মৃত্যু হয়েছে। ঐ প্রসূতি নারী সদর উপজেলার সয়দাবাদ ইউনিয়নের পঞ্চসোনা গ্রামের মনিরুল ইসলামের স্ত্রী। ডাক্তারের ভূল অপারেশনেই তার স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেন নিহতের স্বামী ।  রাশিদা বেগমকে উপজেলার কড্ডার মোড়ে ল্যাব এইচ হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামক একটি বেসরকারি ক্লিনিকে তার সিজার অপারেশন করেন ডাঃ এসএম সমনুল হক সজীব। অপারেশনের সময় হাসপাতালের অব্যবস্থাপনা ও ত্রুটির কারণে তার মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন নিহতের পরিবার।অভিযুক্ত ডাক্তারের বিরুদ্ধে কর্মস্থল ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন ক্লিনিকে নিয়োমিত রোগী দেখেসহ অপারেশন করার অভিযোগ  দীর্ঘ দিনের। হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য রোগী গেলেই নানা অযুহাতে অধিক টাকার লোভে বেসরকারি ক্লিনিকে নিয়ে চিকিৎসা করানোর অভিযোগ রয়েছে এলাকা বাসীর। নিহত প্রসূতি নারীর ভাই হাফিজুল শেখের অভিযোগ গত ৫ অক্টোবর প্রসূতির ব্যাথা উঠায় ডাঃ মুসনুল এর তত্বাবধানে আমার বোনকে উপজেলার কড্ডার মোড় এলাকায় ল্যাব এইচ হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভর্তি করান। ওইদিন বিকেল তিনটার সময় সিজার অপারেশন করেন তিনি।  অপারেশনের পর নবজাতক সুস্থ থাকলেও প্রসূতি নারী ধীরে ধীরে অসুস্থ হতে থাকেন। চিকিৎসক প্রসূতিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন।  সেখানে  আইসিইউতে ৬ দিন রাখার পর অবস্থার আরোও অবনতি হলে ঢাকার হলি ফ্যামিলি হাসপাতাল, লালমাটিয়ায় রয়েল হাসপাতাল এবং সর্বশেষে মিরপুরের ডেলটা হাসপাতালে নেওয়ার পরও তারা রোগীকে ফিরিয়ে দেন। মুমূর্ষু অবস্থায় রোববার (২০অক্টোবর) রাত সাড়ে ১২টার সময় রাশিদার মৃত্যু হয়। তিনি আরোও জানান সকল হাসপাতালের সার্জারি চিকিৎসক পরিক্ষা নিরিক্ষার পর জানিয়েছেন সিজারের সময় অতিরিক্ত অংশ ও কিডনির শিরা কেটে ফেলার কারনে রক্ত সঞ্চালনে ব্যাহত হচ্ছে, কাজেই আমাদের কিছু করার নেই। এ কারনেই আমার বোনের মৃত্যু হয়েছে।   এটস হত্যা যজ্ঞ অপরাধ।এ ঘটনার বিচার চেয়ে আদালতে মামলা করা হয়েছে।কসাই নামের ঐ ডাক্তারকে আইনের আওতায় এনে দ্রুত  সর্বোচ্চ শাস্তির দাবী করেছেন তারা। 
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিরাজগঞ্জ সদরে অভিযুক্ত ডাক্তাার এমএম সুমনুল হক সজীব অনুমোদন বিহিন ও লাইসেন্স ছাড়াই তার স্ত্রী ডাঃ মোমেনা পারভীন (পারুল)কে দিয়ে নিউ এ্যাপোলো হাসপাতাল নামে, একটি প্রাইভেট হাসপাতাল পরিচালনা করানোর অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে । 
এ বিষয়ে অভিযুক্ত ডাক্তারের সাথে কথা বলতে গেলে সাংবাদিকদের সাথে অসদ আচরণ করে উল্টো প্রশ্ন করে বলেন, আমি নিজেও একজন সাংবাদিক, আমার অনলাইন সাংবাদিকতার প্রেজেন্টেশন আছে? এ ঘটনায় সাক্ষাৎকার নিতে হলে সাংবাদিকদের সোসাইটির সদস্য হতে হবে। এ ব্যাপারে কামারখন্দ স্বাস্থ্য ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ মোঃফারুক আহমেদ বলেন, প্রসূতী নারীর মৃত্যুুর ঘটনা পত্রিকায় দেখেছি। এ ব্যাপারে সিভিল সার্জন অফিস থেকে তিন সদস্য বিশিষ্ট্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত অনুযায়ী সিভিল সার্জন অফিস প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবেন। 
সিরাজগঞ্জ সিভিল সার্জন ডাঃ জাহিদুল ইসলাম বলেন, ডাঃ সুমনুল হক সজীবের বিরুদ্ধে ভূল সিজার অপারেশনে প্রসূতি নারীর মৃত্যু হওয়ার বিষয়টি শুনেছি। এ ঘটনায় তিন সদস্য বিশিষ্ট্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট আসার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। নিউ এ্যাপোলো হাসপাতাল লাইসেন্স ছাড়াই চালাচ্ছে বিষয়টি জানাছিল না। জানলাম তদন্ত পূর্বক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Please follow and like us:

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর