,

আবার রাজনীতিতে অমিতাভ বচ্চন!

গান্ধী পরিবারের সঙ্গে অমিতাভের হৃদ্যতার সম্পর্ক কারও অজানা নয়। একটা সময় কংগ্রেস দলের সঙ্গে যুক্ত থেকে এলাহাবাদের এমপিও হয়েছিলেন বটে, তবে পরে রাজনীতি মঞ্চ থেকে নিয়েছিলেন সম্পূর্ণ অবসর। জানিয়েও দিয়েছিলেন রাজনীতিটা তার জন্য নয়। সেই বলিউডের সর্বকালের সেরা সুপারস্টার অমিতাভ বচ্চন ফের ঝুঁকতে শুরু করেছেন সক্রিয় রাজনীতিতে কংগ্রেসের হাত ধরে।

সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়াতে অমিতাভ বচ্চনকে দেখা যাচ্ছে কংগ্রেসের শীর্ষ নেতাদের অনুসরণ করতে। তবে কেন কংগ্রেসের শীর্ষ নেতাদের প্রতি তার এত আগ্রহ তা স্পষ্ট নয়। তবে শীর্ষ নেতাদের টুইটারে তিনি যে ঘুরে বেড়াচ্ছেন তা অনেকের নজরে এসেছে। কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর টুইটার তিনি ফলো করতেন আগে থেকেই, কিন্তু সম্প্রতি তাকে দেখা যাচ্ছে, কংগ্রেসের শীর্ষ নেতা পি চিদাম্বরম, কপিল সিব্বল, আহমেদ প্যাটেল, অশোক গেহলোট, অজয় মেকান, জ্যোতিরাদিত্য সিন্দিয়া, শচিন পাইলট এবং সিপি যোশির মতো ব্যক্তিদের টুইটারে ফলো করতে। এত কংগ্রেস নেতাদের ফলো করার জন্য জল্পনা উঠতে শুরু করেছে তবে কি রাজনীতিতে আসতে চলেছেন অমিতাভ। শুধু টুইটার নয় তিনি ফলো করছেন কংগ্রেসের মণিশ তিওয়ারি, শাকিল আহমেদ, সঞ্জয় নিরুপম, রণদীপ সুর্যেওয়ালা, প্রিয়াঙ্কা চতুর্বেদি এবং সঞ্জয় ঝায়ের ব্লগও।

তবে গান্ধী পরিবারের ঘনিষ্ঠ ও প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর ঘনিষ্ঠ বন্ধু অমিতাভ শুধু গান্ধী পরিবার নয়। নরেন্দ্র মোদিরও কাছের মানুষ। সেইসঙ্গে গুজরাতের ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসডারও। তবে আচমকা অমিতাভের এহেন কংগ্রেস নেতাদের টুইটার অ্যাকাউন্টে ঘরাঘুরিতে অবাক হয়েছেন বিরোধী নেতারা। তবে শুধু কংগ্রেস নয়, অমিতাভজি ফলো করেন আরজেডি প্রধান লালু প্রসাদ যাদব, জেডি (‌ইউ)‌–এর নীতিশ কুমার এবং সিপিআইএমের সীতারাম ইয়েচুরির মতো নেতাদের। সেই সঙ্গে তাকে ফলো করতে দেখা গিয়েছে বেশ কয়েকজন বজেপি নেতাকেও।

বলিউডের সর্বকালের সেরা অভিনেতা হওয়ায় স্বাভাবিকভাবেই সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অমিতাভের ফলোয়ার সংখ্যা বিপুল । তবে বিগ বি নিজে ফলো করেন মাত্র ১ হাজার ৭৩০ জনকে। তার মধ্যে কংগ্রেস নেতাদের সংখ্যাটা আচমকা বেড়ে গেছে। আর তাতেই অমিতাভের রাজনীতিতে ফেরার সম্ভাবনা নিয়ে নতুন গুঞ্জন ডাল-পালা মেলতে শুরু করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর