,

৮৬ বছর পর ভাতা পেলো জোবেদা খাতুন

সমীর বনিক, প্রতিনিধি কাপাসিয়া(গাজীপুর)
জোবেদা খাতুনের জন্ম ১৯৩২ সালে ১ মে মাসে। তাঁর বর্তমান বয়স ৮৬ বৎসর। বয়সের ভাড়ে নুয়ে পড়েছেন জোবেদা। তিনি গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার কড়িহাতা ইউনিয়নের ইকুরিয়া গ্রামের মৃত সাফিউদ্দিনের স্ত্রী। তাঁর এক ছেলে দুই মেয়ে । সন্তানদের মধ্যে ছেলে লোকমান সবার বড়। প্রায় ষোল বছর আগে দুই সন্তান রেখে ছেলে লোকমান মারা যান। ছেলেবউ স্বামী মারা যাওয়ার পর বাবার বাড়ী চলে যায়, আর আসেনি। পরে লোকমানের রেখে যাওয়া সন্তান দুটিও মারা যায়। এর একবছর পর জোবেদা খাতুনের স্বামীও মারা যায়। সাফিউদ্দিনের রেখে যাওয়া দুই মেয়ে আছিয়া ও কোকিলা বেগমকে গরিব ঘরে বিয়ে দেন মা জোবেদা খাতুন । মেয়ে কোকিলা বেগম আয়ার কাজ করে স্বামীর সংসার করছেন। জোবেদা খাতুনের অর্থ-ভিত্ত কোন কিছুই নেই। স্বামীর রেখে যাওয়া ১শতক ভিটি-মাটি আঁকড়ে ধরে রেখেছেন জোবেদা খাতুন। এই ভিটি-মাটিও অন্যের ওয়ারিশ হিসেবে রয়েছে। সর্বক্ষণ তাঁর ভাঙ্গা ডেরা ঘরে জীবন যুদ্ধে সংগ্রাম করে তাঁকে বেচেঁ থাকতে হচ্ছে। কেউ খাবার দিলে তাঁর ভাগ্য জুটে, না হয় অনাহারে দিনাতিপাত করতে হয়। রোগবালাই তো লেগেই থাকে এ যেন নিত্যসঙ্গী। কারো দয়া ছাড়া এক টাকার ঔষধ খাওয়া তাঁর সাধ্যে নেই। জোবেদা খাতুনের ঝুপড়িঘরে সন্ধ্যা প্রদীপটিও জ¦লে না। তীর্থের কাকের মত অপেক্ষায় থাকতে হয় প্রতিবেশীদের দেওয়া খাবারের জন্য। শীত-গরম কখন আসে যায় এই অনুভুতি তাঁকে যেন স্পর্শই করতে পারেনা। এ হৃদয় বিধারক ঘটনা এক হতভাগা দুখিনি মা ৮৬ বৎসরের বৃদ্ধা, বিধবা জোবেদা খাতুনের।
সরজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, ওই ওয়ার্ডের সদস্য দেলোয়ার হোসেন বাবুল দীর্ঘদিন যাবত ইউপি সদস্যের দায়িত্ব পালন করছেন। অথচ একই ওয়ার্ডে এই বয়োবৃদ্ধ মহিলাটির দূরবস্থা নজরে নেয়নি ওই ইউপি সদস্য। উপজেলা বাস্তবায়ন কমিটি বিধানুসারে বিধবা/বয়স্ক ভাতা প্রাপ্য এমন ব্যাক্তিদের নামের তালিকা দেয়ার দায়িত্বে রয়েছেন স্থানীয় ইউপি মেম্বারদের।
দায়িত্বহীনতার বিষয়টি স্থানীয় সাংবাদিকদের নজরে এলে উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা এটিএম তৌহিদুজ্জামানকে অবহিত করা হয়। পরে তিনি বিষয়টি আমলে নিয়ে গত বৃহস্পতিবার স্থানিয় সংসদ সদস্য সিমিন হোসেন রিমি এমপি উপস্থিত থেকে জোবেদা খাতুনকে এক কালিন এক বছরের ভাতাসহ বিধবা কার্ড প্রদান করেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: মাকসুদুল ইসলাম, উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ¦ খন্দকার আজিজুর রহমান পেরা, ভাইস চেয়ারম্যান এডভোকেড রেজাউর রহমান লস্কর মিঠু ও ১১ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানগণ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর