,

সুনামগঞ্জ ১ আসনে আলোচনার তুঙ্গে বিএনপি’র ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরী

সাইফ উল্লাহ ::
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি’র ১/১১ এর পরিক্ষীত কারা নির্যাতিত নেতা সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটি’র সদস্য ও সাবেক জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরী। সুনামগঞ্জ ১ আসনের তৃণমূলের গণ মানুষের প্রাণ প্রিয় নেতা সুখে দু:খে সাধারন মানুষের পাশে থেকে বিএনপি’র হাতকে শক্তিশালী করার জন্য তাহিরপুর, ধর্মপাশা, মধ্যনগর ও জামালগঞ্জে বিভিন্ন সময়ে বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা আলোচনা তুঙ্গে রেখেছেন সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটি’র সদস্য ও সাবেক জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরীকে। সরজমিনে গিয়ে জানাযায়, সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটি’র সদস্য ও সাবেক জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরী। সুনামগঞ্জ ১ আসনের (ধর্মপাশা,জামালগঞ্জ, তাহিরপুর ও মধ্যনগর) নির্বাচনী এলাকায় গণ সংযোগ ও মতবিনিময় ও উঠান বৈঠক করেছেন এবং সকলের কাছে দোয়া প্রার্থী। আলোচনার পর পর এই আসনে সাধারন মানুষের মুখে মুখে আলোচনায় তিনি উঠে আসনে। বিএনপি’র রাজনৈতিক মোড় অনেকটা পাল্টিয়ে গেছে। নবীন ও প্রাবীণ, অবহেলিত বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা ডা. রফিককে নিয়ে চা ষ্টলে, হাটবাজারে আলোচনা ঝড় তুলছেন। তাহিরপুর উপজেলার বালিজুরী ইউনিয়নের বিএনপি’র সভাপতি শাখাওয়াত হোসেন বলেন, তৃণমূল পর্যায়ে ডা. রফিক চৌধুরী জনপ্রিয় বটে, ১/১১ থেকে সব সময় বিএনপি নেতা কর্মীদের পাশে রয়েছেন তিনি। তাহিরপুরের ব্যবসায়ী হাছেন মিয়া (৫৫) বলেন, ডাক্তান সাব’ কোন দূনীতিতে ছিলেনা, একজন সত নেতা বটে, সকলে মিলে প্রাণ খোলে কথা বলতে পারে। কৃষক আবুল কাশেম (৬২) বলেন, আমরা কৃষক মানুষ বিএনপির নেতা ডা. রফিক ভাই আমাদের পাশে থাকেন। জামালগঞ্জের বিএনপি’র সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি রফিকুল বারী বলেন, শহিদ জিয়ার আদর্শ ডা. রফিকুল ইসলামের মাঝে রয়েছে, তাই ডা. রফিক এর নেতৃত্বে আমরা আছি। ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী দিদার হোসেন (৫২) বলেন, ডা. রফিক সাব আমাদের মায়া করেন, কোন সমস্যা হলে তিনি এসে সমাধান করতেন। ধর্মপাশা উপজেলা বিএনপি’র সাবেক সাধারন সম্পাদক প্রভাষক ইসতিয়াক চৌধুরী স্বপন বলেন, দেশ ও জনগণের অধিকার আদায়ে রাজনিতি করি আর সেই নেতৃত্ব রয়েছে ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরীর কাছে তাই তার আদর্শ অনুপ্রাণিত হয়ে আমরা রাজনিতি করে আসছি। সুনামগঞ্জ ১ আসনের ত্যাগী ও কারা নির্যাতিত নেতা অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলামের প্রয়োজন। আমরা আছি উনার সাথে এবং থাকব ইনশাল্লাহ। গণ্যমাণ্য ব্যক্তি জুবেদ আলী (৭০) বলেন, আমি কখন দেখিনী সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটি’র সদস্য ও সাবেক জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরীন মত এত ভাল ও সত মানুষ যিনি নিজের টাকা খরচ করে বিনা মুল্য চক্ষু শিবির করেন হাজার হাজার রোগীর চিকিৎসা করেন। মধ্যনগর থানার সাবেক সাধারন সম্পাদক আবুল বাশার বলেন, বিএনপি’র কান্ডারী জননেতা ডা. রফিক চৌধুরীর বিকল্প নেই, তাই আমরা শিক্ষিত রাজনিতিক নেতার সঙ্গে আছি। গণ্যমাণ্য ব্যাক্তি কামাল হোসেন (৬০) বলেন, ডা. একটি আদশেৃও নাম যার কোন দূনীতি নেই। ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরীর একান্ত ব্যক্তিগত সচিব বিএনপি নেতা জুলফিকার আলী ভুট্্রু বলেন, একজন সৎ, দক্ষ রাজনীতিবীদ দরকার তাই আমারা সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটি’র সদস্য ও সাবেক জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরীকে সুনামগঞ্জ ১ আসনের এমপি হিসেবে দেখতে চাই। সাবেক কেন্দ্রীয় কমিটি’র সদস্য ও সাবেক জেলা বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক ডা. রফিকুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সকলে ঐক্য বদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি’র দলীয় পতাকা তলে সকলে মিলে কাজ করে যাব ইনশাল্লাহ। তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা ও মধ্যনগর নেতা কর্মীদের সাথে নিয়ে গণ সংযোগ করেছি। আমি দেখেছি গ্রামের সাধারন মানুষ জিয়াউর রহমান ও দেশ নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জনগণ ভালবাসেন, হাওর পাড়ের সাধারন মানুষ আজও জিয়াউর রহমানের আদর্শে স্বপ্ন দেখে সেই স্বপ্ন পূরন করার জন্য বিএনপি’র দলীয় প্রতিক ধানের শীষে ভোট দিতে হবে। যদি বিএনপি থেকে আমাকে সুনামগঞ্জ ১ আসনের প্রার্থী মনোনীত করা হয় তাহলে এই আসনটি বেগম খালেদা জিয়াকে উপহার দেওয়ার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করব। ##

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর