,

রাতে মুখোমুখি ফ্রান্স-বেলজিয়াম

জার্মানি-ব্রাজিল-আর্জেন্টিনা কিংবা স্পেন। বিশ্বকাপ মানেই এই ফেভারিট দলগুলোর মহারণ। কিন্তু ফিফা বিশ্বকাপের ২১তম আসর তার পুরোটাই উল্টো। ইতিহাস-সমীকরণ সব পাল্টে এবারের আসর নতুনদের আধিপত্যের। বিশ্বকাপের সোনালি শিরোপা এবার নতুন ঘরেই যাচ্ছে।

আজ থেকে শুরু বিশ্বকাপের সেমিফাইনাল মহারণ। এবারের আসরে সবাইকে চমকে দিয়ে আন্তর্জাতিক ফুটবলের বড় মঞ্চের সেরা চারে জায়গা করে নিয়েছে বেলজিয়াম, ফ্রান্স, ক্রোয়েশিয়া এবং ইংল্যান্ড। সেমিফাইনালের প্রথম দিনের মহারণে রাতে মাঠে নামছে ইউরোপের দুই শক্তিশালী দল ফ্রান্স-বেলজিয়াম। রাশিয়ার সেন্ট পিটার্সবার্গে ম্যাচটি অনুষ্ঠিত হবে বাংলাদেশ সময় রাত ১২টায়।

গ্রুপ পর্বের সেরা হয়েই নক-আউট পর্বে উঠে ফ্রান্স-বেলজিয়াম। নক-আউট পর্বেও নিজেদের সেরাটা প্রমাণ করে দুইদল। দ্বিতীয় রাউন্ডে মেসির আর্জেন্টিনাকে পরাস্ত করে শেষ আট নিশ্চিত করে ফরাসিরা। আর শেষ আটে বড় অঘটনটি ঘটায় বেলজিয়াম। টুর্নামেন্টের হট ফেভারিট দল পাঁচ বারের বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ব্রাজিলকে বিদায় করে সেমির টিকিট পায় রেড ডেভিলসরা।

আসরের দুই ফেভারিটদের বিদায় করা দুইদল আজ পরস্পরের মুখোমুখি। তরুণ ফ্রান্সের যৌবন গর্জনের সামনে আজ বেলজিয়ামের সোনালি প্রজন্ম। নিজেদের দ্বিতীয় শিরোপা ঘরে তুলতে তৈরি দিদিয়ের দেশম শিষ্যরা। অপরদিকে স্বপ্নের শিরোপা প্রথমবারের মত ছোঁয়ার অপেক্ষায় বেলজিয়ামও। ফরাসি শক্তির লাগাম টেনে ফাইনালে যেতে বদ্ধপরিকল্প হ্যাজার্ড, লুকাকুরা। প্রথমবারের মত ফুটবলের এই বিগ মঞ্চে ফাইনালে খেলতে বেশ রোমাঞ্চিত বেলজিয়ানরা।

ইউরোপের দুই প্রতিবেশী বেলজিয়াম ও ফ্রান্সের মুখোমুখি লড়াইয়ের ইতিহাসটা যথেষ্টই দীর্ঘ। এর আগে মোট ৭৩বার দেখা হয়েছে দুই দলের। যার মধ্যে ফরাসিদের জয় ২৪টি, বেলজিয়ানদের ৩০টি। বাকি ১৯টি ম্যাচ হয়েছে ড্র। তবে অতীত ইতিহাস আর পরিসংখ্যান পাল্টে নুতন ইতিহাস লেখার অপেক্ষায় দুই দল।

শক্তিমত্তা-বুদ্ধিমত্তা কিংবা গেম প্ল্যান সব দিক দিয়েই সমানে সমান দুইদল। তাছাড়া আসরের শুরু থেকেই ভয়-ডরহীন ফুটবল খেলেই সেমিফাইল নিশ্চিত করেছে দুই দল।

বেলজিয়াম কোচ রবার্তো মার্টিনেজের শিষ্য কেভিন ডি ব্রুয়েন, অধিনায়ক ইডেন হ্যাজার্ড, রোমেলু লুকাকু, ভিনসেন্ট কোম্পানিরা দেখিয়েছেন কিভাবে প্রতিপক্ষের অহঙ্কার গুঁড়িয়ে দিতে হয়। তাদের পাশাপশি আক্রমণভাগের মূল শক্তি লুকাকু তো আছেনই। ফরাসি শক্তিকে ঠেকাতে পুরোদমে প্রস্তুত রেড ডেভিলসরা। পুরো আসরে সর্বোচ্চ গোল করার তকমাটাও বেলজিয়ামের। আসর জুড়ে প্রতিপক্ষের জালে ১৪ বার বল পাঠিয়েছে লুকাকুরা।

অপরদিকে বসে নেই ফ্রান্সও। পল পগবা-আঁতোয়া গ্রিজম্যানরাও তৈরি তাদের সর্বোচ্চ শক্তি প্রয়োগ করার জন্য। তাছাড়া আক্রমণ ভাগে তো আছেনই গতিদানব কিলিয়ান এমবাপ্পে। বেলজিয়ামের সোনালি স্বপ্নকে মাটি দিয়ে দ্বিতীয় শিরোপার খোঁজে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ তারাও।

বিশ্বকাপের ফাইনালের আগে নিঃসন্দেহে একটি কঠিন ম্যাচের মহারণ হতে যাচ্ছে আজ। দুই ইউরোপিয়ান পরাশক্তির মধ্যে কে যাবে স্বপ্নে ফাইনাল মঞ্চে তা এখন দেখার অপেক্ষা। সবকিছু মিলিয়ে ফাইনালের আগে আজ রাতে অলিখিত একটি ফাইনালের মঞ্চায়ন দেখতে পাবেন গোটা বিশ্বের ফুটবল সমর্থকরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর