,

‘কুরআনের বিধানের বাস্তবায়নই বড় জিহাদ’ পড়া হবে আজকের তারাবিতে

পবিত্র রমজানের ১৬তম তারাবি অনুষ্ঠিত হবে আজ। আজকের তারাবিতে সুরা ফুরকান (২১-৭৭), সুরা শুআরা (২২৭) ও সুরা নমল (৯৩) পড়া হবে। সে সঙ্গে ১৯তম পারার তিলাওয়াত শেষ হবে। আজকের তারাবতে কুরআনের বিধান বাস্তবায়নই সবচেয়ে বড় জিহাদ বা চ্যালেঞ্জ। আজকের তারাবিতে পঠিত আয়াতগুলো আলোচ্য বিষয়গুলো সংক্ষেপে তুলে ধরা হলো-

সুরা ফুরক্বান : আয়াত ৭৭
সুরা ফুরকান হিজরতের পূর্বে এমন সময় মক্কায় নাজিল হয় যখন আরবের অবিশ্বাসীরা রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এবং তাঁর সাহাবায়ে কেরামের ওপর সীমাহীন নির্যাতন করছিল। তারা ছিল গোমরাহী অন্ধকারে আচ্ছন্ন, অন্যায়-অনাচার, জুলুম-অত্যাচার এক কথায় যাবতীয় পাপাচারে লিপ্ত। তারা এ কথাটি বিশ্বাস করতে পারছিল না যে, আল্লাহ তাআলা মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতি তাঁর বাণী নাজিল করেছেন, যিনি চল্লিশটি বসন্ত তাদের মাঝেই অতিবাহিত করেছেন।

এ সুরায় হক্ব ও বাতিল সম্পর্কে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দেয়া হয়েছে এবং সত্য ও অসত্যের মধ্যে বিশেষভাবে পার্থক্য দেখিয়ে দেয়া হয়েছে। তাই এ সুরার নামকরণ করা হয়েছে ফুরকান।

তাওহিদ, রিসালাত ও কিয়ামাত সম্পর্কিত বিস্তারিত বিষয়ের আলোচনার পাশাপাশি যার প্রিয়নবি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নবুয়তকে অস্বীকার করতো, তাদের যাবতীয় সন্দেহ-সংশয়ের খণ্ডন করা হয়েছে এ সুরায়।

সুরা ফুরকানের ২১-৭৭ পর্যন্ত আয়াতে আলোচ্য বিষয়গুলো হলো-
>> কুরআনের বিধান অমান্য করা মহাপাপ;
>> কাফেররা চতুষ্পদ জন্তুর চেয়ে নিকৃষ্ট;
>> স্রষ্ঠার সৃষ্টির উদ্দেশ্য ও আল্লাহর কুদরত;
>> সবচেয়ে বড় জিহদ কুরআনের প্রচার;
>> আল্লাহর প্রিয় বান্দাদের বিশেষ গুণাবলীর আলোচনা;

সুরা শুআরা : আয়াত ২২৭
এ সুরাটি মক্কায় অবতীর্ণ। কবিদের সম্পর্কে আলোচনা রয়েছে বিধায় এ সুরাকে ‘শুআরা’ হিসেবে নামকরণ করা হয়েছে। কবিদের আলোচনা করার কারণ হলো, কবিদের সঙ্গে আম্বিয়ায়ে কেরামগণের পার্থক্য নিরূপণ হলো উদ্দেশ্য, এমন অভিমত ব্যক্ত করেছেন পণ্ডিত মনীষীগণ।

এ সুরার শুরুতেই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের নবুয়ত ও রিসালাতের প্রমাণ স্বরূপ কুরআনের কথা উল্লেখ করেছেন। কেননা কুরআনই নবুয়ত জলন্ত প্রমাণ।

রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামকে সান্ত্বনা দেয়ার জন্য এ সুরায় আল্লাহ তাআলা সাত জন নবির ঘটনা বর্ণনা করেছেন। যাতে অস্বীকারকারীদেরকে সতর্ক করা হয়েছে।

এ সুরার আলোচ্য বিষয়গুলো হলো-
>> পয়গাম্বর সূলভ বিতর্কের একটি নমুনা ও বিতর্কের কার্যকরী রীতিনীতি প্রসঙ্গ;
>> হজরত মুসা আলাইহিস সালামের মুজিযার তাৎপর্য;
>> খ্যাতি-যশ-প্রীতি-সুনাম নিন্দনীয় কিন্তু শর্ত সাপেক্ষে বৈধ;
>> অর্থ-সম্পদ, সন্তান-সন্তুতি এবং পরিবার ঈমানের শর্তে পরকালে উপকারী হওয়ার প্রসঙ্গ;
>> সৎকাজে পারিশ্রমিক গ্রহণ করার বিধান;
>> আসহাবুল আয়কার আলোচনা;
>> নামাজে কুরআনের অনুবাদ পাঠ প্রসঙ্গ;
>> ইসলামে কাব্য চর্চার প্রসঙ্গ;
>> যে জ্ঞান আল্লাহ ও পরকালের ব্যাপারে গাফেল করে দেয়া তার আলোচনা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর