,

আমবয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু বিশ্ব এজতেমা ॥ জুমার নামাজে লাখো মুসল্লি

কাল আখেরি মোনাজাত
মোস্তাফিজুর রহমান টিটু/নুরুল ইসলাম, টঙ্গী থেকে ॥ সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শান্তিপূর্ণভাবে টঙ্গীতে তাবলিগ জামাতের ৫৩তম বিশ্ব এজতেমা শুরু হয়েছে। কনকনে শীত আর পাঁচ স্তরের নজিরবিহীন নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে তাবলিগ জামাতের এবারের বিশ্ব এজতেমার প্রথম পর্বে লাখ লাখ মুসল্লি অংশ নিয়েছেন। তবে তাবলিগ জামাতের বিশ্ব আমির মাওলানা সাদ কান্ধলভির অনুপস্থিতি নিয়ে সাধারণ মুসল্লিদের মাঝে কোন প্রতিক্রিয়া নেই। দু’পক্ষের মাঝে যে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল তা শুধু শীর্ষস্থানীয় মরুব্বিদের মাঝেই সীমাবদ্ধ রয়েছে। শীর্ষ মুরুব্বিদের দু’গ্রুপই সতর্কভাবে তাদের বক্তব্য পেশ করছেন।

এবারের বিশ্ব এজতেমায় যোগ দিতে হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মুসল্লি নানা বিড়ম্বনাকে উপেক্ষা করে শুক্রবারেও টঙ্গীর এজতেমা ময়দানে ছুটে আসেন। এ দিন জুমাবার হওয়ায় সকাল থেকেই টঙ্গী ও আশপাশ এলাকার লাখো মুসল্লির ঢল নামে টঙ্গীর তুরাগ তীরে। নামাজের আগেই এজতেমার পুরো প্যান্ডেল ও ময়দান কানায় কানায় ভরে যায়। প্যান্ডেলের নিচে জায়গা না পেয়ে মুসল্লিরা অংশ নেন ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কসহ আশেপাশের সড়ক ও গলিগুলোর ওপরে। শুক্রবার প্রথম দিনে বাদ ফজর থেকে আমবয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব এজতেমার আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। কাল (রবিবার) আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে প্রথম পর্বের তিন দিনব্যাপী বিশ্ব এজতেমা শেষ হবে। এবারের বিশ^ এজতেমার প্রথম পর্বে লাখ লাখ মুসল্লির সঙ্গে বিশ্বের ৮২ দেশের প্রায় চার হাজার মুসল্লি উপস্থিত হয়েছেন। প্রথমবারের মতো শুক্রবার বাদ ফজর জর্ডানের মাওলানা শেখ ওমর খতিবের আরবিতে আমবয়ানের মধ্য দিয়ে বিশ্ব এজতেমার মূল কাজ শুরু হয়। এবারই প্রথম এজতেমার আমবয়ান আরবিতে দেয়া হয়। তার বয়ান বাংলায় তরজমা করেন বাংলাদেশের মুরুব্বি মাওলানা আব্দুল মতিন। আগামী ১৯ জানুয়ারি (শুক্রবার) থেকে শুরু হবে দ্বিতীয় পর্বের তিন দিনব্যাপী বিশ্ব এজতেমা।

কনকনে শীত ও কুয়াশা উপেক্ষা করে শুক্রবারও মুসল্লিরা এজতেমা ময়দানে আসেন। এবারের বিশ্ব এজতেমায় বিদেশী মুসল্লিদের পাশাপাশি রাজধানী ঢাকাসহ ১৪জেলার মুসল্লিরা অংশ নিচ্ছেন।

বৃহত্তম জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত ॥ বিশ্ব এজতেমার শুরুর দিন জুমাবার হওয়ায় এজতেমা মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে এ যাবতকালের বৃহত্তম জুমার জামাত। নামাজের ইমামতি করেন বাংলাদেশের কাকরাইল মসজিদের পেশ ইমাম হাফেজ মোহাম্মদ জোবায়ের। এজতেমায় যোগদানকারী মুসল্লি ছাড়াও জুমার নামাজে অংশ নিতে ঢাকা-গাজীপুরসহ আশপাশের এলাকার লাখ লাখ মুসুল্লি এজতেমাস্থলে হাজির হন। জুমার মূল জামাত এজতেমা ময়দান ছাড়িয়ে আশপাশের সড়ক-মহাসড়ক পর্যন্ত বিস্তৃতি লাভ করে। নামাজে ২০ লক্ষাধিক মুসল্লি শরিক হন বলে গোয়েন্দা সূত্র জানায়।

প্রথম দিনে যারা বয়ান করলেন ॥ বাদ জুমা বয়ান করেন বাংলাদেশের মাওলানা মোহাম্মদ হোসেন, বাদ আছর বয়ান করেন মাওলানা আব্দুল বারী ও বাদ মাগরিব বয়ান করেন মাওলান মোহাম্মদ রবিউল হক। আগামী রবিবার আখেরি মোনাজাতের পূর্ব পর্যন্ত তাবলিগ জামাতের শীর্ষস্থানীয় মুরুব্বিরা তাবলিগের ছয় উসূল অর্থাৎ কালেমা, নামাজ, এলেম ও জিকির, একরামুল মুসলিমিন, সহিহ নিয়ত ও তাবলিগ ইত্যাদি বিষয়ে বয়ান করবেন।

বয়ানের তাৎক্ষণিক অনুবাদ ॥ বিশ্ব এজতেমায় বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানের তাবলিগ মারকাজের ১৫-২০জন শূরা সদস্য ও বুজর্গ বয়ান পেশ করবেন। মূল বয়ান উর্দুতে হলেও বাংলা, ইংরেজী, আরবী, তামিল, মালয়, তুর্কী ও ফরাসী ভাষায় তাৎক্ষণিক অনুবাদ হচ্ছে।

হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা ॥ টঙ্গী হাসপাতাল ও বিভিন্ন মেডিক্যাল ক্যাম্পে শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত প্রায় দুই হাজার জন মুসল্লি চিকিৎসা নিয়েছেন। এর মধ্যে কয়েকজনকে ঢাকায় রেফার্ড করা হয়েছে এবং প্রায় অর্ধশত জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অসুস্থদের অধিকাংশই ঠা-া, সর্দি, কাশি, আমাশয়, শ্বাসকষ্টের ও হৃদরোগের রোগী বলে জানিয়েছেন গাজীপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ সৈয়দ মনজুরুল হক। এ দিকে সরকারী হাসপাতাল ছাড়াও মুসল্লিদের চিকিৎসা সেবা দিতে এজতেমা ময়দানে প্রায় অর্ধশত বেসরকারী প্রতিষ্ঠান বিনামূল্যে কাজ করছে। শুক্রবার সকাল থেকে এজতেমা ময়দান সংলগ্ন ফ্রি-মেডিক্যাল ক্যাম্পগুলোতে মুসল্লিদের চিকিৎসা নিতে ভিড় দেখা গেছে। মুসল্লিদের স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের জন্য ময়দানের আশপাশে ও মন্নু নগর এলাকায় বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি পরিষদ, র‌্যাব’র ফ্রি-মেডিক্যাল ক্যাম্প, গাজীপুর সিভিল সার্জন অফিস, টঙ্গী ওষুধ ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতি, হামদর্দ ওয়াক্ফ, ইবনে সিনা ফার্মাসিউটিক্যালস, ইন্টারন্যাশনাল মেডিক্যাল কলেজ, বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক কলেজ, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের ইসলামী মিশন, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনসহ বিভিন্ন ফ্রি-মেডিক্যাল ক্যাম্পে চিকিৎসকরা সেবা দিচ্ছেন।

স্বাস্থ্য বিভাগের ছুটি বাতিল ॥ মুসল্লিদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে এজতেমায় দায়িত্বপালনকারী সকল চিকিৎসক ও কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে বলে জানান গাজীপুরের সিভিল সার্জন ডাঃ সৈয়দ মোঃ মঞ্জুরুল হক। তিনি আরও জানান, তিন শিফ্টে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ ছাড়াও মেডিক্যাল অফিসারগণ এজতেমা ময়দানে ডিউটি করছেন। মুন্নগেট, বাটা গেট ও এটলাস হোন্ডা রোডে মুসলিদের তাৎক্ষণিক সেবা দেয়ার জন্য অস্থায়ী মেডিক্যাল ক্যাম্প স্থাপন করা হচ্ছে। এ ছাড়া এজতেমা মাঠের উত্তরে বিভিন্ন সংগঠন ও প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে প্রায় অর্ধশত ফ্রি-মেডিক্যাল ক্যাম্প স্থাপন করা হয়েছে।

দুই মুসল্লির মৃত্যু ॥ এবারের টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব এজতেমায় প্রথম পর্বে যোগ দিতে এসে দুই মুসল্লি মারা গেছেন। এজতেমা জামাতের মাসলেহাল সদস্য আদম আলী জানান, ২৯ নং খিত্তায় শ^াসকষ্টজনিত রোগে মাগুরার শালিখার খরিশপুর গ্রামের আজিজুল হক (৬০) বৃহস্পতিবার রাতে মারা যান।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর