ঢাকা-১৩ : নির্বাচনী প্রচারণায় সরব নৌকা, নীরব স্বতন্ত্র

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে লড়তে প্রতীক বরাদ্দ শেষে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছেন প্রার্থীরা। ইতোমধ্যে রাজধানীজুড়ে নির্বাচনী প্রচারণা জমে উঠলেও কিছুটা ব্যতিক্রম ঢাকা-১৩ আসন।

ঢাকাসহ অন্যান্য আসনে আওয়ামী লীগের পাশাপাশি স্বতন্ত্র প্রার্থীদের সরব উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেলেও ১৩ আসনে তার চিত্র অনেকটা বিপরীত। আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী জাহাঙ্গীর কবীর নানকের প্রচারণা ছাড়া স্বতন্ত্র প্রার্থীদের তেমন উপস্থিতি নেই এ আসনে।

মোহাম্মদপুরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, ঢাকা-১৩ আসনের অলিগলিতে টানানো হয়েছে নৌকার পোস্টার। কিছু কিছু জায়গায় টানানোর কাজ চলছে। তবে, কোথাও দেয়াল সাঁটানো পোস্টার দেখা যায়নি।

ঢাকা-১৩ সংসদীয় আসন তিনটি থানার সাতটি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। রাজধানীর মোহাম্মদপুর, আদাবর ও শেরেবাংলা নগর থানার ২৮, ২৯, ৩০, ৩১, ৩২, ৩৩ ও ৩৪ নম্বর ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত। এ আসনের বর্তমান আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য সাদেক খানকে সমর্থন না দিয়ে দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানককে প্রার্থী করেছে আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী জাহাঙ্গীর কবির নানক ছাড়াও ঢাকা-১৩ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বাংলাদেশ তরীকত ফেডারেশনের কামরুল হাসান (ফুলের মালা), বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের জাফর ইকবাল (মোমবাতি), বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্টের জাহাঙ্গীর কামাল (টেলিভিশন), বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক মুক্তি জোটের মো. শাহাবুদ্দিন (ছড়ি) এবং বাংলাদেশ সুপ্রিম পার্টির সোহেল সামাদ (একতারা) প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

তবে, ঢাকা-১৩ আসনে নৌকার পোস্টারের পাশাপাশি অল্পকিছু জায়গায় স্বতন্ত্র প্রার্থী সোহেল সামাদের পোস্টার দেখা গেছে। এ ছাড়া, অন্য কোনো স্বতন্ত্র প্রার্থীর পোস্টার বা প্রচারণা চোখে পড়েনি।

আরো পড়ুন  আমি শিক্ষক রাজনীতির পক্ষে

নির্বাচনী প্রচারণার জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মোহাম্মদপুরের বেশ কয়েকটি স্থানে প্রচারণা ক্যাম্প বসানো হয়েছে। সেখান থেকে লিফলেট বিতরণ, রিকশার মাধ্যমে মাইকে করে প্রচারণা, গানের মাধ্যমে প্রচারণার কাজ চালানো হচ্ছে। কিন্তু স্বতন্ত্র প্রার্থীদের প্রচারণার কাজে এমন কিছু লক্ষ্য করা যায়নি।

টাউন হল মোড়ে নির্বাচনী প্রচারণা করছিলেন ৩১নং ওয়ার্ড শ্রমিক লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেন। ঢাকা পোস্টকে তিনি বলেন, আমরা নির্বাচন উপলক্ষ্যে ভোটারদের ঘরে ঘরে যাচ্ছি, লিফলেট বিতরণ করছি। ভোটারদেরও যথেষ্ট সাড়া পাচ্ছি। আশা করছি, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সফলভাবে আমরা জয়লাভ করতে পারব।

নির্বাচন প্রসঙ্গে কথা হয় মোহাম্মদপুরের বাসিন্দাদের সাথে। তাদের বেশির ভাগই বলছেন, ১৩ আসনে একপাক্ষিক নির্বাচন হবে। কারণ, জাহাঙ্গীর কবির নানক ছাড়া শক্তিশালী কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী নেই।

কৃষিমার্কেট এলাকার বাসিন্দা মো. শাহজাহান বলেন, নির্বাচন উপলক্ষ্যে প্রার্থীরা প্রচারণা শুরু করেছেন। তবে, আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছাড়া তেমন কারও প্রচারণা দেখা যাচ্ছে না। আওয়ামী লীগের কর্মীরা জনে জনে প্রচারণা চালালেও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের কর্মী-সমর্থকদের দেখা মিলছে না।

তাজমহল রোডের বাসিন্দা আরিফুর রহমান (ছদ্মনাম) বলেন, এ আসনে জাহাঙ্গীর কবীর নানক ছাড়া আর কোনো হেভিওয়েট প্রার্থী নেই। ফলে, নির্বাচনে তিনিই জয়ী হবেন, এমনটি ধরে নেওয়া যায়। আর প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন না হওয়ায় জনসাধারণের মাঝে ভোট নিয়ে তেমন উৎসাহ কাজ করছে না।

ঢাকা-১৩ আসনে মোট ভোটার তিন লাখ ৯৫ হাজার ৪৩৮ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার দুই লাখ তিন হাজার ৭৪৪ জন এবং নারী ভোটার এক লাখ ৯১ হাজার ৬৮৮ জন। তবে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে এ আসনের ভোটার সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *