প্রধানমন্ত্রীকে বরণে প্রস্তুত সিলেট, উচ্ছ্বসিত নেতাকর্মীরা

নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করতে বুধবার (২০ ডিসেম্বর) সিলেটে আসছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সিলেটে পৌঁছে তিনি হযরত শাহজালাল (র.) ও হযরত শাহপরান (র.) এর মাজার জিয়ারত করবেন।

এরপর সিলেট আলিয়া মাদরাসা ময়দানে জেলা ও মহানগর আয়োজিত জনসভায় বক্তৃতা করবেন প্রধানমন্ত্রী। সমাবেশে সভাপতিত্ব করবেন মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমেদ।

সিলেটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশ ঘিরে ঘিরে ব্যস্ত সময় পার করছেন আওয়ামী লীগ ও অংগসংগঠনের নেতাকর্মীরা। নগরের হযরত শাহজালাল (র.) মাজার, শাহপরান (র.) মাজার ও সমাবেশস্থল আলিয়া মাদরাসা ময়দানে কঠোর নিরাপত্তা বলয় গড়ে তুলেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ইতোমধ্যে আলিয়া মাদরাসা ময়দানে সুবিশাল মঞ্চ তৈরি করা হয়েছে। সমাবেশস্থলে জনসাধারণের প্রবেশের জন্য বসানো হয়েছে মেটাল ডোর। মাঠের চতুর্দিকে কর্ডন করা হয়েছে। কয়েকদিন আগে থেকেই বিশেষ বাহিনী ও পুলিশি নিরাপত্তায় রাখা হয়েছে সমাবেশস্থল মাদরাসা মাঠ।

মঙ্গলবার থেকে মাঠ সংলগ্ন সড়ক দিয়ে যানবাহন ও জনসাধারণের চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

হযরত শাহজালাল (র.) ও হযরত শাহ পরান (র.) মাজার জিয়ারত শেষে বুধবারের জনসভার মধ্য দিয়েই আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বলছেন, সিলেটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা ঘিরে অন্তত কয়েখ লাখ মানুষের সমাগম ঘটবে।

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মো. জাকির হোসেন বাংলানিউজকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৮২ সালে আওয়ামী লীগের সভাপতি হওয়ার পর থেকে নির্বাচনের আগে সিলেটে এসে মাজার জিয়ারত করে যান। এখনো সেই ধারা অব্যাহত রেখেছেন তিনি এবং সিলেটে আউলিয়াদের মাজার জিয়ারতের মাধ্যমেই নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন।

আরো পড়ুন  জনতা ব্যাংক রিটায়ার্ড অফিসার্স ফোরামের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন

তিনি বলেন, সংসদ নির্বাচনের প্রচারণা শুরু করতে প্রধানমন্ত্রীর আগমনে সিলেটে উৎসবের আমেজ লেগেছে। নেতাকর্মী থেকে সাধারণ মানুষ সকলেই উজ্জীবিত। আমরা গর্বিত যে, সিলেটের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে কিছু চাইতে হয় না। তিনি নিজে থেকেই সিলেটের উন্নয়নে ভূমিকা রাখেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফরে একাধিক প্রস্তুতি ও মতবিনিময় সভা, প্রচার মিছিল হয়েছে। নগর থেকে জেলা-উপজেলায় পোস্টার সাটানো ও মাইকিং চলছে।

সিলেট আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর আগমনের ঘোষণায় সিলেট বিভাগের ৪ জেলার ১৯টি সংসদীয় আসনের নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সর্বশেষ গত বছরের ২১ জুন বন্যার্তদের দেখতে সিলেট ও সুনামগঞ্জ সফর করেন শেখ হাসিনা। এ সময় তিনি সিলেট সার্কিট হাউসে মতবিনিময় সভায়ও অংশ নেন। তবে ২০১৮ সালের পর আগামীকালই প্রধানমন্ত্রী সিলেটে কোনো জনসভায় ভাষণ রাখতে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, আলিয়া মাদ্রাসা মাঠে জনসভাস্থলে সুবিশাল মঞ্চ নির্মাণসহ আনুষঙ্গিক প্রস্তুতির শেষ কর্মযজ্ঞ চলছে। নগরের বিভিন্ন সড়ক ও সড়ক বিভাজককে বর্ণিল সাজে সাজিয়ে সৌন্দর্যবর্ধন করা হয়েছে সিলেট সিটি করপোরেশন কর্তৃপক্ষ থেকে। একাধিক সড়কে নতুনভাবে কার্পেটিং করা হয়েছে।

মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাকির হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর এই সফর সিলেটবাসীর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। সিলেটবাসীও প্রধানমন্ত্রীকে বরণ করতে মুখিয়ে আছেন।

আওয়ামী লীগের নেতারা জানিয়েছেন, দূরদূরান্তের জেলা-উপজেলা থেকে নেতাকর্মীরা বাস, মাইক্রোবাস ও ট্রেনে এসে সমাবেশস্থলে যোগ দেবেন। বেলা দুইটায় সভা শুরু হওয়ার কথা। এর আগেই নেতাকর্মীরা সমাবেশস্থলে পৌঁছাতে চান। খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে তারা সমাবেশে আসবেন। মূলত ভোটের আমেজ আনতে সিলেটকে একটা উৎসবের নগরে পরিণত করার ইচ্ছা আছে নেতাদের।

আরো পড়ুন  নিখোঁজ জমশেদের সন্ধান চায় তার পরিবার

সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. নাসির উদ্দিন খান বলেন, সিলেটের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ জনসভা করার প্রস্তুতি নিয়েই দলের নেতাকর্মীরা কাজ করছেন। যেহেতু বরাবরের মতো এবারও সিলেটে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করছেন প্রধানমন্ত্রী, তাই সিলেটবাসী অত্যন্ত উৎফুল্ল। প্রধানমন্ত্রী তাঁর ভাষণে দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি যে দিক নির্দেশনা দেবেন, তা সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে অক্ষরে অক্ষরে মেনে চলবেন। তাঁর সফরের মধ্য দিয়েই মূলত সিলেটে ভোটের মাঠে নতুন আমেজ তৈরি হতে যাচ্ছে।

মঙ্গলবার জনসভাস্থল পরিদর্শন শেষে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, পুণ্যভূমি সিলেট থেকেই আওয়ামী লীগ প্রতিবার নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করে। এরই ধারাবাহিকতায় বুধবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটে আসছেন।

প্রধানমন্ত্রী স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ে তুলতে ব্যাপক পরিকল্পনা হাতে নিয়েছেন জানিয়ে তিনি বলেন, এসব পরিকল্পনা বাস্তবায়নে সিলেটবাসী সঙ্গে থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জনসভা সফল করতে সিলেটবাসীর সহযোগিতা কামনা করে জাহাঙ্গীর কবির নানক বলেন, বুধবার আলিয়া মাদরাসা ময়দানে প্রধানমন্ত্রীর জনসভা জনসমুদ্রে পরিণত হবে। এই জনসভার মধ্য দিয়ে প্রমাণ হবে এবারও সিলেটের সব কয়টি আসন সিলেটবাসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে উপহার দেবে।

মাঠ পরিদর্শনে নানকের সঙ্গে ছিলেন সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন, জেলার সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মো. আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীসহ সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *