বিএনপির সঙ্গে জনগণ নেই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেছেন, বিএনপি এই নির্বাচনকে নস্যাৎ করতে যা যা করার তা করছে। তারা আগের মতো অগ্নিসন্ত্রাস, মানুষ হত্যা ও অবরোধ চালিয়ে যাচ্ছে। এতে দেশের জনগণের অমঙ্গল হচ্ছে। দেশের সম্পদ নষ্ট হচ্ছে। নির্বাচনে দলে দলে ভোটকেন্দ্রে এসে ভোট দিয়ে প্রমাণ করতে হবে দেশবাসী তাদের সঙ্গে নেই। তারা নালিশ পার্টি হতে পারে, কিন্তু বিএনপির সঙ্গে বাংলাদেশের জনগণ নেই।

মঙ্গলবার (১৯ ডিসেম্বর) নগরীর ধোপাদিঘীর এলাকায় তার প্রধান নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধনকালে এসব কথা বলেন তিনি।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আমাদের সামনে চ্যালেঞ্জ। প্রধানমন্ত্রী অঙ্গীকার করেছেন একটি সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন করে পৃথিবীকে প্রমাণ করে দিতে। আমরা সুষ্ঠু ও স্বচ্ছ নির্বাচন করবো। যেখানে কোনো সংঘাত হবে না। যা সম্ভব হবে আপনাদের মাধ্যমে। আপনাদের দলে দলে ভোটকেন্দ্রে আসতে হবে।

ড. মোমেন বলেন, আগামীকাল (২০ ডিসেম্বর) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেট আসছেন। আমরা ভালো উপস্থিতি দেখাতে চাই। কারণ শেখ হাসিনার অনুগ্রহে সিলেটের এতো উন্নয়ন হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী আন্তরিকতায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক ছয় লেনে উন্নীত হচ্ছে। সিলেট-তামাবিল ও বাদাঘাট সড়কেরও উন্নতি হচ্ছে। সিলেট বিমানবন্দরের কাজও চলমান আছে। ৫০ বছরের ইতিহাসে প্রথম সুরমা নদী খনন করা হয়েছে। যার কারণে এবার সিলেটে বন্যাও হয়নি। সবই সম্ভব হয়েছে শুধু বঙ্গবন্ধু কন্যার কারণে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, শেখ হাসিনা আমাকে কথা দিয়েছেন আবারও ক্ষমতায় আসলে সিলেট-আখাউড়া রেলপথ ডুয়েল গেজ করে দেবেন। এজন্য তাকে আবারও ক্ষমতায় আনতে হবে।

আরো পড়ুন  সিলেট মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদকসহ গ্রেপ্তার ৪

ড. মোমেন বলেন, সিলেট সিটি করপোরেশনকে অনেক বড় করা হয়েছে। কারণ বড় শহর হলে বাজেটও বড় হবে। সবাই ভালো সুযোগ সুবিধা পাবে। নতুন ১৫ ওয়ার্ডের সুযোগ সুবিধা পেতে ১২০০ কোটি টাকা বাজেট দিয়েছেন।

প্রবাসীদের নিয়েও শেখ হাসিনা কাজ করছেন উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আগামী ৩০ তারিখে বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম প্রবাসী দিবস পালিত হবে। এর আগে কখনও এরকম হয়নি। শেখ হাসিনা আছেন বলেই আমাদের ইজ্জত বেড়েছে। দেশের অবস্থানের উন্নতি হচ্ছে। পরিবর্তন হয়েছে। যার কারণে আমরা আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। আমাদের সামনে অনেক চ্যালেঞ্জ আছে। শেখ হাসিনা থাকলে সেগুলো মোকাবেলা করতে পারব।

নির্বাচনী কার্যালয় উদ্বোধনকালে উপস্থিত ছিলেন সিলেট-১ আসনে নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানো স্বতন্ত্র প্রার্থী ও আওয়ামী লীগের সাবেক কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসেন ও সিলেট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *