১০০ ভরি সোনা এক লাখ, ২২ একর চা বাগান ২৯ হাজার টাকা

দুয়ারে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এই সময়ে বাজারে পেঁয়াজের দামে আগুন লেগেছে! আর হলফনামায় সংসদ সদস্য প্রার্থীরা সোনাদানা ও সম্পত্তির হিসাব দেখাচ্ছেন পানির দরে।

সিলেট-২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও দলটির জেলা সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী হলফনামায় তার ১০০ ভরি স্বর্ণের দাম দেখিয়েছেন মাত্র এক লাখ টাকা। সে হিসাবে তার কাছে গচ্ছিত প্রতি ভরি স্বর্ণের দাম পড়েছে এক হাজার টাকা।

এর আগে বিয়ের উপহারের ২২ ভরি স্বর্ণের দাম ২১ হাজার টাকা দেখিয়ে আলোচনায় আসেন সংসদ সদস্য ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত।

এবার শফিকুর রহমান চৌধুরী বিবাহসূত্রে প্রাপ্ত ১০০ ভরি স্বর্ণের দাম দেখালেন মাত্র এক লাখ টাকা। তিনি স্থাবর সম্পদের মধ্যে ২২ দশমিক ৮২ একর চা বাগানের দাম দেখিয়েছেন মাত্র ২৯ হাজার ২৯২ টাকা।

শফিকুর রহমান চৌধুরীর শিক্ষাগত যোগ্যতা উচ্চ মাধ্যমিক। তার নাম ২টি মামলা ছিল, যা নিষ্পত্তি হয়েছে। পেশায় ব্যবসা ও অন্যান্য। তিনি বছরে আয় দেখিয়েছেন ৪ লাখ ৬১ হাজার ৯১৭ টাকা। এরমধ্যে কৃষিখাতে বছরে আয় দেখিয়েছেন ২৮ হাজার ২০০ টাকা। ব্যাংকে আমানত ১৩ হাজার ৭১৭ টাকা। অন্যন্য কমিশন ব্যবসা থেকে ৪ লাখ ২০ হাজার টাকা।

২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বৈদেশিক উপার্জন থেকে ২০ লাখ টাকা বছরে আয় দেখিয়েছিলেন। ওই সময় স্ত্রীর নামে ১০০ ভরি স্বর্ণ এক লাখ টাকাসহ অস্থাবর সম্পদ দেখিয়েছিলেন ৩৮ লাখ ৬৬ হাজার ৭৬৮ টাকার। স্থাবর সম্পদ অর্জনকালীন মূল্য দেখিয়েছিলেন এক লাখ ৭২ হাজার ৭৯৮ টাকার। এরপর দলীয় নির্দেশে তিনি গত দুই মেয়াদে প্রার্থী হননি।

আরো পড়ুন  গোয়াইনঘাটের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, প্রস্তুত ৫৬ টি আশ্রয় কেন্দ্র

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে অস্থাবর সম্পদের মধ্যে শফিকুর রহমান চৌধুরী হলফনামায় দেখিয়েছেন নগদ ৯৫ লাখ ৬ হাজার ৯৬ টাকা, ব্যাংকে জমা ৫ লাখ ৭২ হাজার ৩৯ টাকা, ২টি জিপ গাড়ির দাম দেখান যথাক্রমে ১৩ লাখ ও ৭০ লাখ টাকা। স্বর্ণ ১০০ ভরি বিবাহকালীন অর্জনমূল্য দেখিয়েছিন ১ লাখ টাকা। ইলেক্ট্রনিক ও আসবাবপত্র ২ লাখ টাকার। একনলা বন্দুকের মূল্য ৫০ হাজার টাকা এবং ওয়ানপয়েন্ট থ্রিটুবোর পিস্তল ৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা।

স্থাবর সম্পদের মধ্যে বিশ্বনাথে কৃষি জমি ৪ দশমিক ৫৮ একর মূল্য ২০ হাজার ৭৫০ টাকা এবং ৪ দশমিক ৫০ একর জমি ৭৭ হাজার টাকা। অকৃষি জমি নিজ নামে ৫ কাঠা প্লট উত্তরা ঢাকায় মূল্য ৩৩ লাখ টাকা। এছাড়াও অকৃষি ৯ একর জমির দাম ১৬ হাজার ৩৭০ টাকা। ১২ দশমিক ২৭ শতক ভূমি ও দোতলা দালানের মূল্য দেখিয়েছেন ৮৫ হাজার ৬৩৬ টাকা।

শফিকুর রহমান চৌধুরী সিলেটের কালাগুলে ২২ দশমিক ৮২ একর চা বাগানের মূল্য দেখিয়েছেন ২৯ হাজার ২৯২ টাকা। তবে ব্যাংকে দায়দেনা নেই তার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *