‘অ্যানিমেল’ খ্যাত তৃপ্তির সঙ্গে আনুশকার সম্পর্ক ভাঙার কারণ কী?

বর্তমানে বাজার ভীষণ চড়া অ্যানিমেল ছবির। মুক্তির পর থেকেই ৫০০ কোটি টাকার ব্যবসা করে ফেলেছে ছবিটি। মুভিতে রণবীর কাপুর, ববি দেওলের নৃশংস পারিবারিক দ্বন্দ্ব এখন সামাজিক মাধ্যমে চর্চিত বিষয় হলেও ছবির নায়ক রণবীর কাপুরের সঙ্গে তৃপ্তি দিমরির ঘনিষ্ঠ দৃশ্য সবকিছুকে ছাড়িয়ে গেছে। কিন্তু কে এই তৃপ্তি দিমরি, যাকে নিয়ে এত আলোচনা, সমালোচনা?

রণবীরের সঙ্গে তৃপ্তির অন স্ক্রিন ‘ঘনিষ্ঠতা’ নিয়ে ইতিমধ্যেই সমালোচনা শুরু হয়েছে। দুজনের পক্ষ থেকেই জানানো হয়েছে, চিত্রনাট্যের প্রয়োজনে তারা সেই দৃশ্যে অভিনয় করেছেন। নির্দেশ মেনেছেন পরিচালকের। তাতে সমালোচনা বন্ধ হয়নি। এ নিয়ে মুখ খুলেছেন তৃপ্তি নিজেও। তৃপ্তি জানান, ‘অ্যানিমেল’ ছবির ওই দৃশ্যের থেকেও অনেক বেশি কঠিন ছিল ‘বুলবুল’ ছবিতে ধর্ষণের দৃশ্যে অভিনয়। আমার মনে হয়, বুলবুলে যে ধর্ষণের দৃশ্যে অভিনয় করেছিলাম, সেটা অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং ছিল। কারণ, ওখানে আমায় আত্মসমর্পণ করতে হয়েছিল। নিজে থেকে কিছু করার তুলনায় আত্মসমর্পণের অভিনয় করা অনেক বেশি কঠিন। ওটা সামলাতে পারলে এ বারের দৃশ্য আমার কাছে একেবারেই কঠিন নয়। ‘অ্যানিমেল’ ছবিতে ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয়ের সময় মাত্র চার জন সেটে উপস্থিত ছিলেন। তারা ক্রমাগত সাহস জুগিয়েছেন আমাকে।

তৃপ্তি আরও জানান, ‘ছবির ওই দৃশ্য নিয়ে অনেক সমালোচনা হয়েছে। আমাকেও প্রথমে নাড়া দিয়েছিল সেটা। প্রথম কয়েকটি ছবিতে আমি সমালোচনার মুখে পড়িনি। এ বার তাই হল। সেটে যারা ছিলেন, সবাই বোঝানোর চেষ্টা করে গিয়েছিলেন। তবে আমি মনে মনে ভেবে নিয়েছিলাম যে, যা করছি, ঠিক করছি। কারণ, একজন অভিনেতা হিসাবে এ ধরনের অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে যাওয়া খুব স্বাভাবিক।’

আরো পড়ুন  ব্যবসায় নামলেন পরীমণি

এর পরেই তৃপ্তি জানান, যাদের ছবি তৈরির বিষয়ে ধারণা নেই, তারা অনেক কিছু কল্পনা করে নেবেন। তাঁদের কাছে গোটা বিষয়টি ‘ভয়ংকর’ বতে পারে। কিন্তু তার কাছে সে রকম নয়। চরিত্রের প্রয়োজনে যা করা উচিত, তাই করবেন।

এর আগে ২০২০ সালে নেটফ্লিক্সে মুক্তি পায় ‘বুলবুল’। সেখানে প্রযোজক ছিলেন আনুশকা শার্মা এবং ও তার ভাই কর্নেশ শার্মা। বাঙালি বধূর চরিত্রে তৃপ্তির অভিনয় নজরে আসে।

এরপর ২০২২ সালে নেটফ্লিক্সে মুক্তি পায় নতুন আরেকটি ছবি ‘কলা’। ওই ছবিরও প্রযোজক আনুশকা শার্মা। কলা চরিত্রে অবসাদ, উদ্বেগ, হিংসা নিপুণভাবে ফুটিয়ে তুলেছিলেন তৃপ্তি। তার অভিনয় মন ছুঁয়ে যায় দর্শকদের। এ দুই ছবির কল্যাণে আনুশকার ভাই কর্নেশের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন তৃপ্তি। কর্নেশ তার ‘বুলবুল’ এবং ‘কলা’ ছবির প্রযোজক ছিলেন। ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বর কর্নেশের সঙ্গে একটি ঘনিষ্ঠ ছবি সমাজমাধ্যমে প্রকাশ করে তৃপ্তি জানান, নিজেদের সম্পর্কের কথা।

তৃপ্তির জন্মদিনে সামাজিক মাধ্যমে তাকে অভিনন্দন জানিয়েছিলেন খোদ আনুশকা। তারপরই জল্পনা শুরু হয়, তবে কি বিয়েটা সেরেই ফেলবেন কর্নেশ আর তৃপ্তি! এরমাঝেই কর্নেশের সঙ্গে প্রযোজনা ব্যবসা ছেড়ে বেরিয়ে আসেন আনুশকা। এরপর কোনো কারণে সামাজিক মাধ্যমে একে অন্যকে আনফলো করেন তৃপ্তি এবং কর্নেশ।

অদ্ভুত এক পোস্ট দিয়ে তৃপ্তি কর্নেশের উদ্দেশে লেখেন, ‘লোকে অনেক কথা বলবে। কিছু যায় আসে না। যাতে তুমি ভাল থাকো, তাই করো।’ এর মাধ্যমে তৃপ্তি বুঝিয়ে দেন তার সম্পর্ক ভাঙার কথা। তবে সম্পর্ক নিয়ে যে তৃপ্তি অবসাদে ভুগছেন না সেটিও বুঝিয়ে দিয়েছেন একের পর এক হিট ছবি উপহার দিয়ে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *