দুঃখপ্রকাশ করলেন তানজিন তিশা, তুলে নিলেন অভিযোগও

বিনোদন সাংবাদিকদের সঙ্গে অভিনেত্রী তানজিন তিশার চলমান বিবাদের মীমাংসা হলো। গণমাধ্যমের সামনেই নিজের ‘অপেশাদার বক্তব্য’র জন্য দুঃখপ্রকাশ করেছেন তিনি। সেই সঙ্গে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ডিবিতে দেওয়া অভিযোগও তুলে নিয়েছেন।
শনিবার (২৫ নভেম্বর) রাজধানীর মিন্টু রোডের ডিবি কার্যালয়ে যান তানজিন তিশা। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন অভিনয়শিল্পী সংঘের সভাপতি আহসান হাবিব নাসিম; আর সাংবাদিকদের মুখপাত্র হিসেবে ছিলেন বুলবুল আহমেদ জয়। কার্যালয়ে ডিবি কর্তার সঙ্গে আলোচনায় বসেন তারা। সেটা শেষ করে বের হয়েই গণমাধ্যমের মুখোমুখি হন।

এ সময় একটি লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান তানজিন তিশা। সেটা এরকম, ‘আপনাদের সকলের ভালোবাসা ও সহযোগিতায় অভিনয়শিল্পী তানজিন তিশা। আমি কয়েকদিন আগে হাসপাতালে অসুস্থ ছিলাম। সেখান থেকে বাসায় ফেরার পর দেখলাম, দুয়েকটি নিউজপোর্টাল আমার আত্মহত্যা চেষ্টা শিরোনামের নিউজ করেছে। এমন সময় সাংবাদিক তামিম (যার সঙ্গে আমার কোনো পূর্ব পরিচয় নেই) সে আমাকে একটা টেক্সট করে, যেটা ওই সময়ের জন্য আমার কাছে যৌক্তিক মনে হয়নি। আমি ভাবতেই পারিনি, এই সময়ে কেউ আমাকে এমন একটি টেক্সট করবে বা একজন নারীকে কেউ এমন প্রশ্ন করতে পারে। আমি সহ্য করতে না পেরে তাকে জানাই, টেক্সেটের বিষয়ে নিউজ করলে সর্বোচ্চ ব্যবস্থা নেবো।’
দুঃখপ্রকাশ করে তানজিন তিশা বলেছেন, ‘তার (তামিম) সঙ্গে ফোনে যেসব শব্দ উচ্চারণ করেছি, আমি জানি তা সঠিক নয়। সেটার জন্য আমি দুঃখপ্রকাশ করেছি, এখনও করছি। এরমধ্যে আমার সঙ্গে কথা বলার কলরেকর্ড অনুমতি ছাড়া প্রচার করা হয়েছে। তা শুনে অন্যান্য সাংবাদিকরা রেগে যায়, যা খুবই যৌক্তিক। তবে আমাকে ও আমার পরিবারকে নিয়ে অনেকে অসত্য, মনগড়া সংবাদ ও লেখা সোশ্যাল মিডিয়ায় লেখেন। সেসব দেখে আমি রেগে যাই। তারপর আমি ডিবিতে অভিযোগ করতে আসি। সেখানেও গণমাধ্যমের সামনে তামিম ও প্রতিষ্ঠানের নাম নিয়ে ফেলি। যেটা আমি উদ্দেশ্যমূলকভাবে নিইনি। সেজন্য প্রতিষ্ঠানটির (চ্যানেল টোয়েন্টিফোর) কাছে আমি দুঃখপ্রকাশ করছি। একজনকে নিয়ে প্রতিষ্ঠান চলে না।’
তামিমের বিরুদ্ধে করা অভিযোগ তুলে নেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমি পুলিশের কাছে যে অভিযোগ করেছিলাম, সেটাও তুলে নিচ্ছি। তবে যারা আমার এবং আমার পরিবারকে ঘিরে অসত্য-অসম্মানজনক নিউজ প্রকাশ করেছে, তারা অনুতপ্ত হবে। সেই সঙ্গে লেখাগুলো সরিয়ে নেবেন, সেটাও আমি প্রত্যাশা করি। কারণ এটা একজন শিল্পী বা নারীর জন্য অসম্মানজনক।’
এরপর সাংবাদিকদের পক্ষে একটি লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন জ্যেষ্ঠ সাংবাদিক বুলবুল আহমেদ জয়। সেটার কিছুটা এরকম ‘গত কয়েক দিন ধরে গণমাধ্যম ও তানজিন তিশার মধ্যে যা ঘটেছে, তা নিশ্চয়ই প্রত্যাশিত ছিল না। শিল্পীদের একটি কথা ভুলে গেলে চলবে না, সাংবাদিকরা কখনোই তাদের প্রতিপক্ষ না। গণমাধ্যমের কাজ প্রশ্ন করা, সত্য সংবাদ যাচাই-বাছাই করে পাঠক-দর্শকের সামনে তুলে ধরা। এই কাজটি করতে গিয়ে কখনও কখনও ভুল বোঝাবুঝি হয়। যা কথা বলে আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা যায়।’
দুঃখপ্রকাশ করে তিনি আরও বলেছেন, ‘বিতর্ক নয়, আমরা সমাধান চাই। একে-অন্যের সঙ্গে মিলেমিশে কাজ করে যেতে চাই। এর মধ্যে তানজিন তিশা তার ভুল বুঝতে পেরেছেন, দুঃখ প্রকাশ করেছেন। আমরাও আমাদের জায়গা থেকে দুঃখপ্রকাশ করছি। আশা করবো এই ঘটনাটি এখানেই সমাপ্তি ঘটবে।’
বলা দরকার, গত ১৫ নভেম্বর রাতে অচেতন অবস্থায় তানজিন তিশাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়। তখন জানা যায় তিনি ঘুমের ওষুধ খেয়ে ‘আত্মহত্যার চেষ্টা’ করেছেন। তাৎক্ষণিক বিষয়টি নিয়ে চাঞ্চল্য তৈরি হয় শোবিজ পাড়ায়। গুঞ্জন ওঠে, অভিনেতা মুশফিক আর ফারহানের সঙ্গে সম্পর্কের জেরে এমন কাণ্ড করেছেন তিশা। এই সূত্র ধরেই তিশার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেন অনেক সংবাদকর্মী। তার সাড়া না পেয়ে একটি প্রশ্ন তার মুঠোফোনে পাঠান চ্যানেল টোয়েন্টিফোরের সাংবাদিক মাজহারুল ইসলাম তামিম। সেটা পেয়ে উল্টো তিশাই কলব্যাক করেন এবং ‘ক্ষমতা দিয়ে’ সাংবাদিকদের ‘উড়িয়ে দেওয়া’র হুমকিও দেন।
পরে অবশ্য সেই আচরণের জন্য ক্ষমা চেয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেন তানজিন তিশা। কিন্তু ওই পোস্ট আবার মুছেও দেন তিনি। আর ডিবি কার্যালয়ে গিয়ে অভিযোগ করেন সাংবাদিক তামিমের বিরুদ্ধে। এছাড়া গণমাধ্যমের সামনেই ওই সাংবাদিকের নাম উচ্চারণ করে ক্ষোভ ঝাড়েন তিশা।
এ ঘটনার প্রতিবাদে রাজপথে নামেন বিনোদন সাংবাদিকরা। ২১ নভেম্বর দুপুরে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সার্ক ফোয়ারার সামনে মানববন্ধন করে তানজিন তিশাকে ২৪ ঘণ্টাকে সময় বেঁধে দেন ক্ষমা প্রার্থনা ও অভিযোগ তুলে নেওয়ার জন্য। তিন দিন পর অবশেষে সেটার সমাধান হলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *