শুধু শোকজ নয়, এবার ব্যবস্থা: ইসি

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘনকারীদের এতদিন শোকজ করা হয়েছে। এখন দৃশ্যমান ব্যবস্থা নেবে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

এক্ষেত্রে প্রার্থিতা বাতিল করার মতো সিদ্ধান্তও আসতে পারে।
শনিবার (২৩ ডিসেম্বর) নির্বাচন ভবনে এক বৈঠক শেষে এমন তথ্য জানিয়েছেন ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ।

তিনি বলেন, নির্বাচন কর্মকর্তারা ঢাকার বাইরে ছিলেন। এজন্য আমাদের অনেকগুলো ফাইল পেন্ডিং ছিল। আজ আলোচনার পর পেন্ডিং ফাইল নিষ্পত্তি করেছি।

আচরণবিধি মানাতে পারছেন না কেন- এমন প্রশ্নের জবাবে অশোক কুমার দেবনাথ বলেন, যেকোনো ধরনের অভিযোগ, ভিডিও ক্লিপস যেখান থেকেই আসুক না কেন, সব বিষয় আমরা রিটার্নিং কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট এসপির কাছে পাঠাবো। তাদের কাছ থেকে আসা তদন্ত প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

যশোর, ঝিনাইদহ ও রাজশাহীর তদন্ত রিপোর্ট নিয়ে কী ব্যবস্থা হলো- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সেটার ব্যবস্থা হয়েছে। প্রতিবেদনে যা পেয়েছি সেটা হলো সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের (ওসি) নির্লিপ্ততার জন্য প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত হয়েছে। ঝিনাইদহের শৈলকুপা আর হরিণাকুণ্ডুর ওসির নির্লিপ্ততার প্রমাণ পাওয়া যাওয়ায় তাদের প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

এ ছাড়া রাজশাহীতে মামলা হয়েছে। তাই কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। যশোরেও মামলা হয়েছে। যেখানে মামলা হয়েছে সেখানে সিদ্ধান্ত হয়নি।

এত রদবদল তবু কেন পুলিশ, প্রশাসনে নির্লিপ্ততা- এমন প্রশ্নের জবাবে ইসির এ কর্মকর্তা বলেন, প্রশাসনে তো গণহারে নির্লিপ্ততা নেই।

আপনারা কেবল শোকজ করছেন, ব্যবস্থা কেন নিচ্ছেন না- এমন প্রশ্নের জবাবে অশোক কুমার দেবনাথ বলেন, এখন শোকজ করাই কেবল নয়, তাদের (ডিসি, এসপি) প্রতিবেদনের ভিত্তিতে আমরা ব্যবস্থা নেব। কোনো একটি দৃশ্যমান আপডেট আপনারা পাবেন।

আরো পড়ুন  নির্বাচনী ব্যয়ের উৎস জানাতে হবে নির্বাচন কমিশনকে

তিনি বলেন, যেখানে যারা হামলা করেছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। নির্বাচনী তদন্ত কমিটি আচরণবিধি না মানলে সংশ্লিষ্টদের শোকজ করছে। তবুও সেকেন্ড টাইম করলে এখন ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্বতন্ত্র প্রার্থীরা ক্ষমতাসীন প্রার্থীদের চাপে রয়েছে- এমন বিষয় উত্থাপন করা হলে অশোক কুমার দেবনাথ বলেন, আমাদের নির্বাচন কমিশন বিভিন্ন জেলা সফর করেছে। তাদের মেসেজ হচ্ছে, কোনোভাবেই যেন পক্ষপাত আচরণ না হয়। আপনারা অচিরেই দেখবেন, যে তারা স্বাভাবিকভাবে প্রচার চালাতে পারবেন। মামলা, প্রয়োজনে প্রার্থিতা বাতিল হতে পারে।

আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *